President

কিছুটা আক্ষেপ করেই বীরেন্দর শেবাগ বললেন কথাটা। ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিসিআই) ওপরের মহলে যোগাযোগটা আর একটু বেশি থাকলেই বিরাট কোহলিদের কোচ হতে পারতেন তিনি। ইন্ডিয়া টিভিকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে শেবাগ বলেছেন, ‘যাঁরা ভারতীয় ক্রিকেট দলের কোচ নির্বাচনের দায়িত্বে ছিলেন, তাঁদের সঙ্গে আমার যোগাযোগটা কম ছিল বলেই আমি কোচ হতে পারিনি।’

অনিল কুম্বলের উত্তরসূরি হিসেবে বিসিসিআই বরাবর আবেদনও করেছিলেন ৩৮ বছর বয়সী শেবাগ। সাক্ষাৎকারও দিয়েছেন। কিন্তু চাকরিটা শেষ পর্যন্ত পেয়েছেন রবি শাস্ত্রী। তবে এ ব্যাপারে শাস্ত্রীর প্রতি তাঁর কোনো ক্ষোভ নেই বলেই জানিয়েছেন তিনি, ‘গত জুনে চ্যাম্পিয়নস ট্রফির সময় আমি যখন ইংল্যান্ডে, তখন রবি শাস্ত্রীকে কোচের পদে আবেদন করতে বলেছিলাম। কিন্তু তিনি আমাকে বললেন, তিনি আবেদন করবেন না। কারণ হিসেবে বললেন, তিনি একই ভুল বারবার করতে চান না।’

শেবাগ বলেছেন, শাস্ত্রী যদি সে সময় আবেদন করতেন, তাহলে আমি কোনোমতেই ভারতীয় ক্রিকেট দলের কোচ হিসেবে আবেদন করতাম না।’

ভারতীয় ক্রিকেট দলের কোচ হওয়ার স্বপ্নটা আগে কখনোই দেখেননি শেবাগ। ব্যাপারটা নিয়ে ভাবারও অবকাশ তাঁর নাকি হয়নি। কিন্তু কোচের পদে আবেদনটা তিনি নাকি করেছিলেন বিসিসিআইয়ের কয়েকজন কর্মকর্তার কথাতেই, ‘বিসিসিআইয়ের বেশে কয়েকজন কর্মকর্তার কথায় আমি আবেদনটা করি। কারা আমাকে ভুল পথে পরিচালিত করেছে। তারা আমাকে এই পদে আবেদন করার কথা বলে। তখন আমি আবেদন করি।’

আবেদন করার আগে তিনি ভারতীয় অধিনায়ক বিরাট কোহলির সঙ্গেও কথা বলেছেন বলে জানিয়েছেন, ‘কোহলিকে বলতেই সে আমাকে বলে আবেদন করতে, সুযোগটা নিতে। কিন্তু সত্যি বলছি, এই পদের প্রতি আমার আগে কখনোই কোনো আকর্ষণ ছিল না।’

গত জুলাইয়ের বিসিসিআইয়ের তিন সদস্যের উপদেষ্টা কমিটি অনিল কুম্বলের পর নতুন কোচ হিসেবে রবি শাস্ত্রীর নাম ঘোষণা করে। এই উপদেষ্টা কমিটির তিন সদস্য হলেন সৌরভ গাঙ্গুলী, শচীন টেন্ডুলকার ও ভিভিএস লক্ষ্মণ।

১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ১২:৪৮ পি.এম